আগামী বছর প্রকাশ হবে শহিদ আফ্রিদির আত্মজীবনী গ্রন্থ

আগামী বছর প্রকাশ হবে শহিদ আফ্রিদির আত্মজীবনী গ্রন্থ

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন
“খোলামেলা বই” —

একজন ক্রিকেটার হিসেবে শহীদ আফ্রিদির জীবন সবসময় একটি খোলা বইয়ের মতো। তবে আপনি তাকে শীঘ্রই জানতে পাবেন ব্যক্তিগতভাবে।
অলরাউন্ডার অফ্রিদি আগামী বছর তার আত্মজীবনী প্রকাশের জন্য সময় ঠিক করেছেন। এর মাধ্যমে তিনি বিশেষভাবে ভারতীয় সংগীদের তার ‘রেষারেষি ও মিত্রতা’ আর সেইসাথে সামরিক বাহিনীর প্রতি তার মোহ এবং রাজনীতি নিয়ে তার দৃষ্টিভঙ্গি জানা যাবে।
আফ্রিদির এ আত্বজীবনী লিখেছেন ওয়াজাহাত এস খান। আর তার অবিশ্বাস্য জীবনের বন্ধ কপাট উন্মোচন করছেন হার্পারকলিন্স ভারত।
তার বই সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে এই কিংবদন্তি ক্রিকেটার উল্লেখ করেন, “আমার ক্রিকেট জীবনের বছরগুলোতে আমি শত শত সাক্ষাতকার দিয়েছি এবং কয়েক ডজন টিভি শো করেছি, কিন্তু আপনি আমার স্মৃতিকথা পড়ে জানতে পারবেন আমার গল্প এবং চিন্তা, যা আমি আগে কখনো প্রকাশ্যে সেভাবে শেয়ার করিনি। আমার আস্থা, আমার ভয়, আমার শত্রুতা, আমার উচ্চাকাক্সক্ষা, আমার লক্ষ্য এবং ব্যর্থতা সম্পর্কে বলার অনেক কিছু আছে আমার।”
সাবেক অধিনায়ক সম্প্রতি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পাকিস্তানের প্রতিনিধিত্ব করা তার বর্ণাঢ্য ২০ বছরের ক্যারিয়ারের সমাপ্তি টানার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
মাত্র ১৬ বছর বয়সে একজন ক্রিকেটার হিসাবে কর্মজীবন শুরু করা আফ্রিদি এর পর  থেকে বিভিন্ন রেকর্ড করেছেন। তিনি  টি২০ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৯৮টি খেলায় পাকিস্তনের প্রতিনিধিত্ব করে ৯৭ উইকেট শিকার এবং ১৪০৫ রান করেছেন। গড় রান ছিল ওভার প্রতি ১৮। তিনি সংক্ষিপ্ততম এই ক্রিকেট ফরম্যাটে ৪৩ ম্যাচে জাতীয় দলের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করে ১৯টিতে বিজয়ী হন আর হেরে যান এবং ২৩টিতে।

লেখক সম্পর্কে
বইয়ের লেখক সম্পর্কে অফ্রিদি বলেছেন, “নিজেকে এই কাজ করতে প্রস্তুত করতে অনেক লম্বা সময় ধরে আদেশ ছিল, কিন্তু আমি একটি সূক্ষ্ম গল্পবলিয়ে ওয়াজাহাত ভাইয়ের মত সাংবাদিককে এ জন্য সাথে পেয়ে গর্বিত। আমি প্রকাশকের কাছেও কৃতজ্ঞ আমার বই প্রকাশের অবকাশ করে দেয়ার জন্য।”
ওয়াজাহাত সাঈদ খান, পাকিস্তানের এমি মনোনীত ইসলামাবাদ ভিত্তিক মাল্টিমিডিয়া সাংবাদিক। তিনি পাকিস্তানের প্রধান প্রধান নেটওয়ার্কের জন্য অনেক অনুষ্ঠান উপস্থাপন ও প্রযোজনা করেছেন। তিনি স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক অনেক নিউজ চ্যানেল ও প্রকাশনায় রিপোর্টও করেছেন।
জন্ম: ১৯৭৮, কোয়েটা, পাকিস্তান
শিক্ষা: মিশিগান, হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়
২০১১ সালে খান হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শোরেনস্টেইন সেন্টার অন মিডিয়া, পলিটিক্স এন্ড পাবলিক পলিসি কর্তৃক গোল্ডস্মিথ ফেলো মিডিয়া মনোনীত হন। শোরেনস্টেইন সেন্টারের প্রথম পাকিস্তানি ও কনিষ্ঠ  ফেলো সাঈদ খানকে পাকিস্তানের সোশ্যাল মিডিয়ায় জঙ্গিবাদ ও ঘৃণার উত্থান সম্পর্কে একটি সমীক্ষা চালানোর জন্য দায়িত্ব প্রদান করা হয়।
তাঁর প্রথম “বিয়িং শহীদ আফ্রিদি ‘শীর্ষক বই ২০১৭ সালে প্রকাশ হবে। বইটি প্রকাশ করবে হার্পার কলিন্স এবং বিখ্যাত পাকিস্তানী ক্রিকেটার শহীদ আফ্রিদির একটি আত্মজীবনীমূলক বর্ণনা থাকবে এতে।

শেয়ার করুন