গণমাধ্যমের স্বাধীনতা বিরোধি আইনের পরিবর্তন দাবী ‘এথনিক মিডিয়া’ সম্মেলনে

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা বিরোধি আইনের পরিবর্তন দাবী ‘এথনিক মিডিয়া’ সম্মেলনে

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন

গণমাধ্যম ও প্রেসের বাক স্বাধীনতা দমিয়ে রাখে এমন আইন পরিবর্তনের দাবি জানিয়ে শেষ হয়েছে  ৫ম ‘এথনিক মিডিয়া’ সম্মেলন। মিয়ানমারের কায়া প্রদেশের লোয়াকৌ শহরে ২৬ জুন থেকে ২৮ শে জুন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত তিন দিনের সম্মেলনের শেষ দিনে প্রকাশিত একটি বিবৃতিতে এই দাবিটি আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়।

সম্মেলন আয়োজনকারী বার্মা নিউজ ইন্টারন্যাশনালের নয়া কাসুহা সোম বলেন, “আমরা শুনেছি যে সামরিক বাহিনীর সদস্যরা দি  ইরাবতীর এক সাংবাদিক এবং ডিভিবি মাল্টিমিডিয়া গ্রুপের দুই সাংবাদিককে  তাআং ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মি (টিএনএলএ) আয়োজিত এক মাদক বিরোধী অনুষ্ঠানের প্রথম দিনে ঘটনাস্থল থেকে গ্রেফতার করেছে। এই কারণে মিডিয়া গোষ্ঠীর প্রতিনিধিরা আটক সাংবাদিকদের মুক্তি এবং গণমাধ্যম স্বাধীনতার নিগৃহীতকারী  আইন বাতিলের অনুরোধ জানাচ্ছে।”

সম্মেলন চলাকালে, জাতিগত গণমাধ্যম সংস্থাগুলি চারটি বিবৃতি উপস্থাপন করে এবং কেইন রাজ্যে ষষ্ঠ এথনিক মিডিয়া সম্মেলন অনুষ্ঠিত করার সিদ্ধান্ত নেয়। তারা সরকার, প্রেস কাউন্সিল এবং অন্যান্য সংশ্লিষ্ট সংস্থার সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার মাধ্যমে মিডিয়ার আইনগুলি এবং জাতিগত প্রচার মাধ্যমের দুর্বলতা নিয়ে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেয়। ২৮ জুনের বিবৃতিতে বলা হয় যে তারা রাষ্ট্রীয় আইনসভা / সরকার ও সমাজের সাথে সচেতনতামূলক মতবিনিময় করবে। একটি গণতান্ত্রিক ফেডারেল ইউনিয়ন গড়ে তোলার সময়, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা পেতে এবং জাতিগত প্রচার মাধ্যমের ভূমিকা সংশোধন করার একটি নীতিমালা তৈরি করার পরিকল্পনা করা হয়েছে এই সম্মেলনে। ৭ টি রাজ্য থেকে জাতিগত প্রচার মাধ্যম সংস্থাগুলির ১৭৬ জন প্রতিনিধি, ইয়াংগুন ও মান্দলেতে অবস্থিত প্রধান গণমাধ্যম সংস্থা, সরকার এবং আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধিরা ৫ম এথনিক মিডিয়া কনফারেন্সে অংশগ্রহণ করে।

print
SOURCEমিজিমা
শেয়ার করুন