নেপালে চীনা-নির্মিত সশস্ত্র পুলিশ একাডেমী হস্তান্তর

নেপালে চীনা-নির্মিত সশস্ত্র পুলিশ একাডেমী হস্তান্তর

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন
নেপালের চীনা রাষ্ট্রদূত ইয়া হং (ডানে) এবং নেপালি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব লোকদর্শন রেগামি (বামে) নেপালের কাঠমান্ডুতে ৩০শে জুন,২০১৭ তারিখে হস্তান্তর অনুষ্ঠান কাগজপত্রে স্বাক্ষর করেন। নেপাল পুলিশ একাডেমির একটি প্রকল্প নির্মাণ সমাপ্তির পর শুক্রবার নেপালের কাছে হস্তান্তর করেছে চীন। (সিনহুয়া-সুনিল শর্মা)

নেপালের জাতীয় আর্মড পুলিশ ফোর্স (এপিএফ) একাডেমির একটি সহযোগিতা-ভিত্তিক প্রকল্প নির্মাণ সমাপ্তির পর শুক্রবার নেপালের কাছে হস্তান্তর করেছে চীন। কাঠমান্ডুর এপিএফ সদর দপ্তরে একটি বিশেষ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে নেপালের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব লোকদর্শন রেগামি ও চীনের রাষ্ট্রদূত ইউ হং এই হস্তান্তর আর স্বীকৃতি সনদপত্রে স্বাক্ষর করেন। নেপালের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জনার্দন শর্মা, নেপাল ও চীনা সরকারের উভয় পক্ষের নিরাপত্তা সংস্থা ও কর্মকর্তাদের প্রধানদের উপস্থিতিতে এই কার্যক্রমটি সম্পাদিত হয়। নেপালে প্রথমবারের মত ন্যাশনাল সশস্ত্র পুলিশ ফোর্স একাডেমী, চীনা সহায়তা ও অনুদানে নির্মিত হয়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব লোকদর্শন রেগমী বলেন, “প্রকল্পটি থেকে নেপালের সশস্ত্র পুলিশ বাহিনী বেশ উপকৃত হবে। এই অবকাঠামোগুলি অবশ্যই তাদের সাংগঠনিক ক্ষমতা এবং দক্ষতা বৃদ্ধির পাশাপাশি দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে যা সশস্ত্র পুলিশ বাহিনীর জন্য নিদারূণভাবে প্রয়োজন”।

তিনি আরো উল্লেখ করেন যে, এই একাডেমী অত্যন্ত যোগ্য পেশাদার বাহিনী সৃষ্টির মাধ্যমে উদীয়মান নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে সক্ষম হবে। চীনের রেলওয়ের ১৪ তম ব্যুরোর কোম্পানি দ্বারা পূর্ণাঙ্গ সমন্বিত এই প্রশিক্ষণ একাডেমীটি নির্মিত হয়েছে। ২০১৫ এর ভয়াবহ ভূমিকম্পের মাত্র কয়েক দিন আগে ১৬ই এপ্রিল কাঠমান্ডুর চন্দ্রগুড়ী এলাকায় এই একাডেমী নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছিল।

চীনা রাষ্ট্রদূত ইউ তার বক্তব্যে বলেছেন যে, এই একাডেমী জাতীয় নিরাপত্তা একটি উল্লেখযোগ্য অবদান রাখতে পারেন। চীনা রাষ্ট্রদূত বলেন “আমি আশাবাদী যে নেপাল আরো সশস্ত্র পুলিশ বাহিনীর প্রশিক্ষণ দিতে পারবে এবং দেশের অব্যাহত নিরাপত্তার নিশ্চয়তা প্রদান করে এমন একটি দল গঠন করে উন্নয়নে অবদান রাখবে। প্রতিভা বিকাশ, উন্নয়ন ও জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে নেপালের সাথে রাষ্ট্রীয় সহযোগিতার জন্য চীন সবসময় প্রস্তুত থাকবে।”

SOURCEসিনহুয়া
শেয়ার করুন