এমপি ফারিশ আইনপ্রণেতাদের ঘুষ দিয়েছেন, পুলিশের দাবি

এমপি ফারিশ আইনপ্রণেতাদের ঘুষ দিয়েছেন, পুলিশের দাবি

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন

মালদ্বীপ পুলিশ দাবি করেছে, পার্লামেন্টের স্পিকারকে অপসারণের অনাস্থা প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিতে এমপি ফারিস মামুনের ঘুষ প্রদানের প্রমাণ তাদের কাছে আছে। এর ফলে ফারিসকে গ্রেফতার করার সম্ভাবনা বাড়ল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে সুপারিনডেন্টেন্ড আহমদ শিফান বলেন, এখন আমরা জানাচ্ছি, আমাদের কাছে আসা ঘুষ প্রদানের অভিযোগটি ব্যাপকভাবে তদন্ত করছি আমরা।

তিনি বলেন, আমাদের আইনে ঘুষের মারাত্মক শাস্তির কথা বলা আছে। আমরা তদন্ত করার ব্যাপাওে আমাদের দায়িত্ব পালন করছি।

শিফান নিশ্চিত করেন, বিরোধী জামহুরি পার্টির অ্যাক্টিভিস্ট আহমদ শাফিউকে কথিত ঘুষের অভিযোগের ভিত্তিতে সোমবার গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া ঘুষের অভিযোগের সাথে সম্পৃক্ত থাকায় পুলিশ সাবেক প্রেসিডেন্ট মামুন আবদুল গাইয়ুমের ব্যক্তিগত সহকারী আহমদ সফওয়ানকে দেশে ফিরিয়ে আনার আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হচ্ছে।

তিনি অবশ্য কোনো প্রশ্নের জবাব দেননি।

পার্লামেন্টের স্পিকার আবদুল্লাহ মাসিহ মোহাম্মদকে পদচ্যুৎ করার জন্য বিরোধী জোট তার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনার প্রেক্ষাপটে পুলিশ এই বক্তব্য প্রদান করল। ৮৫ সদস্যবিশিষ্ট পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ বা মজলিশের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্য অনাস্থা প্রস্তাবের পক্ষে সই করেছে।

এমপি ফারিস হলেন ক্ষমতাসীন দলের আইনপ্রণেতাদের একটি গ্রুপের নেতা। তার বাবা মামুন আবদুল গাইয়ুম প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়েমিনের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহারের পর ফারিস ক্ষমতাসীন প্রগ্রেসিভ পার্টি অব মালদ্বীপের একটি অংশের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তাদের সমর্থন নিয়েই বিরোধী জোট পার্লামেন্টের সংখ্যাগরিষ্ঠতা হাসিলের চেষ্টা করছে। গত মার্চে গাইয়ুম বিরোধীদের সাথে একটি চুক্তিতে সই করেন।

তবে ফারিস ঘুষ প্রদানের পুলিশের অভিযোগ সুস্পষ্টভাবে অস্বীকার করেছেন। তিনি দাবি করেন, পুলিশ ‘ বৈধ’ ভিডিও বা অডিও প্রমাণ দাখিল করতে পারবে না।

স্পিকারের বিরুদ্ধে সোমবার যে অনাস্থা প্রস্তাব দাখিল করা হয়েছে, তাতে ক্ষমতাসীন দলের ১০ এমপির সই আছে। এমপি আহমদ রশিদ ওই প্রস্তাবে সই করার কথা অস্বীকার করে বলেছেন, তার সই জাল করা হয়েছে। তিনি এ ব্যাপারে তদন্ত করার জন্য পার্লামেন্ট সচিবালয়কে অনুরোধ করেছেন।

কিন্তু বিরোধী দল ওই আইনপ্রণেতার এমপি ফারিসের সামনে অনাস্থা প্রস্তাবে সই করার ছবি প্রকাশ করেছে।

স্পিকারের বিরুদ্ধে যে ৪৮ এমপি সই করেছেন, তাদের মধ্যে ক্ষমতাসীন দলের ওই ১০ এমপিও আছেন। তবে তারা গত মার্চে স্পিকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছিলেন।

print