পাকিস্তানের ‘সমন্বিত সন্ত্রাসী বিরোধী অপারেশন’ এর প্রস্তাব গ্রহণ করেছে আফগানিস্তান

পাকিস্তানের ‘সমন্বিত সন্ত্রাসী বিরোধী অপারেশন’ এর প্রস্তাব গ্রহণ করেছে আফগানিস্তান

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন

পাকিস্তান ও আফগানিস্তান সীমান্তবর্তী অঞ্চলে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে “সমন্বিত, সম্পূরক” নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সম্মত হয়েছে বলে আফগান কর্মকর্তারা বুধবার নিশ্চিত করেছেন। সিনেটর জন ম্যাককেইন নেতৃত্বে একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন মার্কিন কংগ্রেস প্রতিনিধিদল এই সপ্তাহে ইসলামাবাদ ও কাবুলে তাদের সফরের সময় দুই পক্ষের সাথে মধ্যস্থতা করেন।

আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি এবং মার্কিন প্রতিনিধিদলের মধ্যে মঙ্গলবারের বৈঠকের পর এক বিবৃতিতে জানানো হয়, যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটররা বলেছে যে পাকিস্তানের সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া ডুরান্ড লাইন অঞ্চলে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে যৌথ অভিযানের ব্যাপারে একমত হন। ম্যাককেইনের প্রতিনিধি দলের উদ্ধৃতি দিয়ে বিবৃতিতে বলা হয়,  “তারা বলেছে যে এই অপারেশনগুলির নজরদারি ও যাচাইয়ের জন্য ইউ.এস. সহযোগিতা করবে।”

আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের মধ্যে ছিটমহলবেষ্টিত প্রায় ২৬০০ কিলোমিটার সীমান্ত ডুরান্ড লাইন নামে পরিচিত। সন্ত্রাসী অনুপ্রবেশে কোন কাজ না করার জন্য উভয় দেশই নিয়মিতভাবে একে অপরকে দোষারোপ করে। পারস্পরিক গভীর অবিশ্বাস এবং আন্তরিকতাশূন্য দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের জন্যেই এধরণের অভিযোগগুলি করা হচ্ছে বলে মনে করা হয়। আফগান প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র দাওয়া খান মিনাপল বুধবার ভয়েস অফ অ্যামেরিকাকে বলেন, “আফগান সরকার [পাকিস্তানী] প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছে এবং এই যুগপত যৌথ অভিযান চালানোর একটি ব্যবস্থার মাধ্যমে আমাদের প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা বাহিনীর আরও উন্নতি হবে।”

ভয়েস অফ অ্যামেরিকা পাকিস্তান সামরিক মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গাফুরের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি আফগানিস্তানের সাথে নিরাপত্তা সহযোগিতার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তবে, তিনি পাকিস্তানি মাটিতে আফগানিস্তানের বাহিনী প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে বলে যে সকল রিপোর্ট এসেছে তা নাকচ করে দেন। তিনি বলেন “পাকিস্তানের মাটিতে [যৌথ অভিযানের] কোন সম্ভাবনাই নেই”। পাকিস্তানের মাটিতে বিদেশী সৈন্যদের পা দেওয়ার অনুমতি দেয়া হবে না। “