ভুটানে দেশীয় ওধুষের প্রতি ঝোঁক বাড়ছে

ভুটানে দেশীয় ওধুষের প্রতি ঝোঁক বাড়ছে

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন

ভুটানে দেশীয় চিকিৎসা ও ভেষজ ওষুধের প্রতি ঝোঁক ক্রমাগতভাবে বাড়ছে। গত কয়েক বছর ধরে ‘ন্যাশনাল ট্রেডিশন মেডিসিন হসপিটাল’ (এনটিএমএইচ)-এ চিকিৎসা নিতে আসা রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকায় ‘হেলথ সিস্টেম রিভিউ’ ম্যাগাজিনের এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

থিম্ফুতে অবস্থিত এনটিএমএইচ সারা দেশের হাসপাতালগুলোতে দেশীয় পদ্ধতির চিকিৎসা ইউনিট পরিচালনা করে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এনটিএমএইচ থেকে খাওয়ার ওষুধ ও থেরাপি নিতে আসা রোগীর সংখ্যা গত পাঁচ বছরে অনেক বেড়েছে। ২০১১ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত এনটিএমএইচ-এ নিবন্ধিত রোগী সংখ্যা ছিলো যথাক্রমে ১৩৪,৭৪৬, ১৭৩,০৫৭, ১৮২,২৯১, ১৮৫,০৮৩ ও ১৯৩,৬৬৭ জন। গত বছর সবচেয়ে বেশি গ্যাস্ট্রিটিস রোগীর চিকিৎসা দেয়া হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এক বছরে ওষুধ প্রস্তুত কোম্পানিগুলো ১৩ মেট্রিক টনের মতো দেশজ ওষুধ সরবরাহ করেছে। এর মধ্যে ৯৫ ধরনের জরুরি দেশজ ওষুধ রয়েছে।

১৯৬৮ সালে ভুটানের মূলধারার চিকিৎসা পদ্ধতিতে দেশীয় পদ্ধতির সংযোজন করা হয়। এই চিকিৎসাপদ্ধতির চাহিদা ক্রমাগত বাড়তে থাকায় ২০১৩ সালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এই খাতকে ডিভিশন থেকে ডিপার্টমেন্টে উন্নিত করে। এতে দেশীয় স্বাস্থ্য পরিচর্যা, স্থানীয় চিকিৎসা, আধ্যাত্মিক স্বাস্থ্য এবং ফর্মাসিউটিক্যালস ডিভিশন রয়েছে।
ভুটানের এলোপ্যাথিক চিকিৎসকরাও সাধারণভাবে দেশজ ওষুধ গ্রহণ করেন। ২০১৬ সালে জরুরি ওষুধের তালিকায় ১১৪টি দেশজ ওষুধ স্থান পায়।

তবে, দেশীয় ওষুধের প্রতি ভুটানবাসীর ঝোঁক সরকারের জন্য কিছু চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। এগুলোর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো ঐতিহ্যগত ওষুধ প্রস্তুতের সামর্থ্যে ঘাটতি। তাছাড়া গবেষণা তহবিল, নতুন ওষুধ আবিষ্কার ও এ বিষয়ে প্রশিক্ষণের অভাব রয়েছে বলে প্রতিবেদন জানায়।

SOURCEদি ভুটানিজ
শেয়ার করুন