সিরিসেনার সফরে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ১০টি চুক্তি হবে

সিরিসেনার সফরে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ১০টি চুক্তি হবে

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন

শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনার সফরে দেশটির সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে কমপক্ষে ১০টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই করবে বাংলাদেশ।

বৃহস্পতিবার তিন দিনের সফরে বাংলাদেশে আসছেন সিরিসেনা।
পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে প্রথম বাংলাদেশ সফরে ৭৩ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে দেবেন সিরিসেনা।

এর আগে ২০১৩ ও ২০১৪ সালে দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে বাংলাদেশ ঘুরে গিয়েছিলেন তিনি।

এদিন বেলা ১১টার দিকে ঢাকার হজরত শাহজালাল বিমানবন্দরে নামলে ২১ বার তোপধ্বনি দিয়ে সিরিসেনাকে অভ্যর্থনা জানানো হবে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানাবেন। পরে তাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হবে।

শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্টের এই সফর পারস্পারিক সহযোগিতার ক্ষেত্রে নতুন সুযোগ তৈরি করবে বলে আশা করছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

চুক্তিগুলোর মধ্যে উপকূলীয় জাহাজ চলাচল এবং কূটনীতিক ও সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ভিসা ছাড় বিষয়ে চুক্তি অন্যতম।

অন্য যে চুক্তিগুলো স্বাক্ষর হবে বলে আশা করা হচ্ছে, তার মধ্যে রয়েছে- কৃষি খাতে সহযোগিতা, উচ্চ শিক্ষা, বিনিয়োগ কর্তৃপক্ষ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, উভয় দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মধ্যে, পররাষ্ট্র সেবা বিষয়ক ইন্সটিটিউট, বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘বিস’ ও শ্রীলঙ্কার এলকেআইআইআরএসএস’র মধ্যে এবং রেডিও, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্র বিষয়ে সহযোগিতা বিনিময়।

অর্থনৈতিক বিষয়ে সহযোগিতা ছাড়াও দুদেশের মান নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠান, সংবাদ সংস্থা এবং চট্টগ্রাম বিজিএমইএ ফ্যাশন ইন্সটিটিউট ও শ্রীলঙ্কা টেক্সটাইল ও অ্যাপারেল ইন্সটিটিউটের মধ্যে সহযোগিতা বিষয়ক চুক্তি স্বাক্ষর হওয়ার কথা রয়েছে।

শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সিরিসেনার দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হবে বলে জানান শাহরিয়ার আলম। ওই বৈঠকে বাণিজ্য, বিনিয়োগ, কৃষি, মৎস্য, উপকূলীয় জাহাজ চলাচল, শিক্ষা, তথ্য প্রযুক্তি এবং ভিসা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা হবে।

“বর্তমানে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যের পরিমাণ মাত্র ৮ কোটি মার্কিন ডলার। কিন্তু এই বাজার আরও বিস্তৃত করার সুযোগ রয়েছে।”

মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির (এফটিএ) বিষয়েও শ্রীলঙ্কার সঙ্গে আলোচনা হবে বলে জানান শাহরিয়ার।

এর আগে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলোচনায় কলম্বোতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার এম রিয়াজ হামিদুল্লাহ শ্রীলঙ্কার বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে আসার পরামর্শ দেন।

“শ্রীলঙ্কা মাত্র দুই কোটি জনসংখ্যার একটি ক্ষুদ্র দেশ হওয়ায় সেখানে ব্যবসা-বাণিজ্য বিস্তৃত করা কঠিন। এ কারণে দেশটির ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তাদের বাংলাদেশের মতো একটি বড় দেশে বিনিয়োগের বিষয়ে দৃষ্টি দেওয়া উচিৎ।

ভারতের সঙ্গে দুইদিকে বিস্তৃত ভূখণ্ড এবং পূর্বদিকে মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের স্থল সীমান্ত থাকার বিষয়টি উল্লেখ করে রিয়াজ বলেন, বাংলাদেশে উৎপাদিত পণ্য স্থানীয় বাজারের পাশাপাশি ভারত ও মিয়ানমারেও বিক্রি করা সম্ভব।

জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী, সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ, পররাষ্ট্র মন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাক্ষাত করবেন।

শনিবার ঢাকা ছাড়ার আগে এক বাণিজ্য সংলাপে অংশ নেবেন তিনি।

print