ভারতের পারমাণবিক কৌশলের নজর এখন পাকিস্তান থেকে সরে চীনের দিকেঃ আমেরিকান গবেষণার...

ভারতের পারমাণবিক কৌশলের নজর এখন পাকিস্তান থেকে সরে চীনের দিকেঃ আমেরিকান গবেষণার তথ্য

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন

ভারত তার পরমাণু অস্ত্রাগারের ক্রমাগত আধুনিকীকরণ করছে যা তার পারমাণবিক কৌশল পরিবর্তনের ইঙ্গিত এবং তাদের পারমাণবিক কৌশলের কেন্দ্রবিন্দু যা ঐতিহ্যগতভাবে পাকিস্তানের দিকে ছিল তা এখন চীনের দিকে সরে আসতে শুরু করেছে| এ সংক্রান্ত এক গবেষণায় এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

জুলাই-আগস্ট মাসে ডিজিটাল জার্নাল “আফটার মিডনাইট” এর দুই শীর্ষ মার্কিন পারমাণবিক বিশেষজ্ঞ বলেছেন, “ভারত তার পরমাণু অস্ত্রাগারের আধুনিকায়ন চালিয়ে যাচ্ছে, বর্তমান কমপক্ষে চারটি নতুন অস্ত্র ব্যবস্থার উন্নয়ন চলছে যা বিদ্যমান পারমাণবিক অস্ত্র বহনে সক্ষম বিমানের জন্য উপযোগী করে তোলা হচ্ছে। এছাড়া স্থলভিত্তিক সরবরাহ ব্যবস্থা এবং সমুদ্র ভিত্তিক সিস্টেমগুলির প্রতিস্থাপন করার উদ্যোগও নেওয়া হচ্ছে। ”

হ্যান্স এম ক্রিস্টেনসেন এবং রবার্ট এস নরিস এর লেখায় বলা হয়েছে যে,  “ভারতে ১৫০ থেকে ২০০ পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্রের জন্য যথেষ্ট প্লুটোনিয়াম উৎপাদন হয়েছে বলে অনুমান করা হয়। তবে  এখন সম্ভবত ১২০ থেকে ১৩০টি ক্ষেপণাস্ত্র আছে।”

গবেষণায় দেখা গেছে যে, পারমাণবিক অস্ত্রসম্মৃদ্ধ দেশটি বর্তমানে সাতটি পরমাণু অস্ত্র বহনে-সক্ষম সিস্টেম পরিচালনা করে,  যার মধ্যে দুটি বিমান,  চারটি স্থল ভিত্তিক ক্ষেপণাস্ত্র এবং এক সমুদ্র-ভিত্তিক ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে। এর বাইরে কমপক্ষে আরো চারটি সিস্টেম এখন প্রক্রিয়াধীন অবস্থায় আছে।

গবেষণায় উল্লেখ করা হয়, “তাদের উন্নয়ন কর্মসূচি একটি গতিশীল পর্যায়ে রয়েছে, স্থল ও সমুদ্র ভিত্তিক দীর্ঘ পরিসীমার ক্ষেপণাস্ত্র আগামী দশকের মধ্যে যুদ্ধ-প্রস্তত স্থাপনার জন্য তৈরি হবে”।

রিপোর্টে আরও বলা হয় যে, ভারতে আনুমানিক ৬০০ কিলোগ্রাম পারমাণবিক অস্ত্র-গ্রেড প্লুটোনিয়াম উৎপাদিত হয়েছে, তবে এর সম্পূর্ণ অংশ পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র তৈরিতে ব্যবহার হবে না। যদিও গবেষণায় বলা হয়েছে যে, বর্তমানে প্রক্রিয়াধীন ক্ষেপণাস্ত্র সিস্টেমগুলো যুদ্ধ উপযোগী করার জন্য এখনকার চেয়ে আরও বেশী ক্ষেপণাস্ত্র প্রয়োজন হবে।