ভারতে বফোর্স দুর্নীতি মামলা আবার শুরুর উদ্যোগ

ভারতে বফোর্স দুর্নীতি মামলা আবার শুরুর উদ্যোগ

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন
রাজীব গান্ধী

ভারতে বহুল আলোচিত বফোর্স অস্ত্র মামলা আবার শুরু করার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। একদল এমপি এ ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার জন্য সরকারের কাছ থেকে অনুমতি প্রার্থনা করার জন্য কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা সিবিআইয়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। এ ব্যাপারে কী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে, তা জানাতে সিবিআইকে দুই সপ্তাহের সময় দিয়েছে পার্লামেন্টারি একটি কমিটি। নিহত কংগ্রেসী প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী এবং দলের বেশ কয়েকজন সিনিয়র সদস্য ওই কেলেঙ্কারিতে জড়িত ছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

বৃহস্পতিবার প্রতিরক্ষাবিষয়ক পার্লামেন্টারি কমিটির বৈঠকে কমিটির প্রধান বিজেডি এমপি ভাররত্রুহরি মাহতাব, বিজেপির নিশিকান্ত দুবে বলেন, সিবিআইকে অবশ্যই দিল্লি হাইকোর্টের ২০০৫ সালের অস্ত্র মামলাটি বাতিল করার নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করতে হবে।

দুবে ও মাহতাব বলেন, মামলাটি ব্যর্থতা ও অপরাধপ্রবণ মানসিকতার স্পষ্ট উদাহরণ। ফলে প্যানেল মনে করে, সিবিআইকে অবশ্যই মামলাটি আবার শুরু করার জন্য সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করতে হবে।

সিবিআই পরিচালক অলোক ভার্মার কাছে জানতে চাওয়া হওয়া কেন সংস্থাটি ইতোপূর্বে সুপ্রিম কোর্টে যায়নি। এমপিদের নাকি বলা হয়েছে, মামলাটি নিয়ে অগ্রসর হওয়ার অনুমতি ওই সময়ে ক্ষমতাসীন ইউপিএ সরকার দেয়নি।

প্যানেলের সামনে অন্যান্যের মধ্যে সিপিআই প্রধান ও প্রতিরক্ষাসচিব সঞ্জয় মিত্র উপস্থিত ছিলেন।

ছয় সদস্যের এমপি প্যানেলটি তাদের ভাষায় তাদের সামনে আসা ‘সবচেয়ে পুরনো’ প্রতিবেদনটি পরীক্ষা করছে। ওই প্রতিবেদনটি ছিল ১৯৮৬ সালের বফোর্স হাউটজার কামান চুক্তি নিয়ে নিরীক্ষকের মন্তব্যবিষয়ক।

বফোর্স মামলাটি ১৯৮০-এর দশকে রাজীব গান্ধীর কংগ্রেস সরকারের জন্য বিপর্যয়কর হয়েছিল। ওই ঘটনার জের ধরে তাদের ক্ষমতায় ফেরাটা কয়েক বছর বিলম্বিত হয়েছিল।

অভিযোগ রয়েছে, সুইডিশ প্রতিরক্ষা নির্মাণ প্রতিষ্ঠান বফোর্স তাদের কামান বিক্রির জন্য রাজীব গান্ধী এবং অন্য কর্মকর্তাদের বিপুল পরিমাণ অর্থ ঘুষ দিয়েছিল। হাইকোর্ট তার রায়ে বলেছিল, রাজীব গান্ধী ঘুষ নিয়েছিলেন, এমন কোনো প্রমাণ নেই। কংগ্রেস সভাপতি সনিয়া গান্ধীর স্বামী এবং রাহুল গান্ধীর পিতা রাজীব গান্ধী ১৯৯১ সালে আততায়ীর হাতে নিহত হন।

print
SOURCEএনডিটিভি
শেয়ার করুন