ভারতের জিএসটি নিয়ে সংকটে ভুটানের সিমেন্ট রফতানি

ভারতের জিএসটি নিয়ে সংকটে ভুটানের সিমেন্ট রফতানি

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন

সম্প্রতি ভারতের প্রবর্তন করা পণ্য ও সেবা কর (জিএসটি)’র কারণে দেশটিতে সিমেন্ট রফতানি নিয়ে ভুটান সমস্যায় পড়েছে। নতুন আইন অনুযায়ী সিমেন্ট আমদানির জন্য ভারতীয় ক্রেতাদের ২৮% জিএসটি দিতে হবে। এর ফলে ভারতের বাজারে সিমেন্ট বিক্রি ঠিক রাখতে হলে ভুটানি সিমেন্ট উৎপাদকদের দাম কমিয়ে দিতে হবে।

পেনডেন সিমেন্ট অথরিটি লিমিটেড (পিসিএএল)’র বিক্রি বিভাগের প্রধান তাসি দ্রুকপা সংবাদ মাধ্যমকে বলেন যে ভারতীয় সিমেন্টের দাম কমে যাবে এবং যেসব এলাকায় বর্তমানে ভুটানের সিমেন্ট যাচ্ছে সেখানে ভারতীয় সিমেন্টের বাজার তৈরি হবে।

তিনি বলেন, আমদানির ক্ষেত্রে ভ্যাট, আবগারি শুল্ক এবং অন্যান্য কর মিলিয়ে প্রায় ৩০-৩৩ শতাংশ দিতে হয় যা ভারতীয় উৎপাদকদের দিতে হবে না। এটা তাদের জন্য বেশ সুবিধাজনক হবে।

জিএসটি বাস্তবায়নের পর গত শুক্রবার ভারতীয় প্রিমিয়াম ব্রান্ড প্রতি বস্তা সিমেন্টের দাম ৩৬৫ রুপি থেকে কমিয়ে ৩৪৫ রুপি নির্ধারণ করা হয়েছে। আরেক ব্রান্ড ডালমিয়া সিমেন্টের দাম প্রতি বস্তায় ১৫ রুপি কমানো হয়েছে। ফলে এখন প্রতিবস্তা সিমেন্টের দাম পড়বে ৩৩০ থেকে ৩৩৬ রুপি।

জিএসটি ও পরিবহন খরচ মিলিয়ে ভারতের বাজারে পেনডেন সিমেন্টের দাম ৩৭৭ রুপি দাঁড়াবে বলে দ্রুকপা জানান। বর্তমানে এক মেট্রিক টন পেনডেন সিমেন্টের কারখানা মূল্য ৫,৬১৭.৫০ নগুট্রাম। প্রতিযোগিতায় থাকতে হলে এই মূল্য অন্তত ৯৪০ রুপি কমাতে হবে।

পেনডেন সিমেন্টের মান ও গুডউইলের কারণে এর দাম কিছুটা বেশি বলে পিসিএএল কর্মকর্তারা জানান। কারখানায় সমস্যার কারণে সম্প্রতি এর উৎপাদন কমে গেছে। ফলে জিএসটি বিধি কার্যকর হওয়ার আরো আগে ১৮ জুন থেকে থেকে ভারতে তাদের সিমেন্ট রফতানি বন্ধ রয়েছে।

গত বছর এই প্রতিষ্ঠান ভারতে তাদের সর্বোচ্চ পরিমাণ ২২৭,৩৯০ মে.টন সিমেন্ট রফতানি করে। এর আগের বছর রফতানি ছিলো ২১২,০৯০ মে.টন। পিসিএলএ’র ব্যবসার ৬০ শতাংশ রফতানিমুখি।

আরেক সিমেন্ট কোম্পানি ‘লক্ষ্মী’র এক কর্মকর্তা জানান ভারতের জিএসটি প্রবর্তন সেখানে ভুটানের সিমেন্ট বাজারকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

তবে, দু’দেশে বিশেষ সম্পর্কের কথা বিবেচনা করে ভারত ভুটানের সিমেন্ট কোম্পানিগুলোকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষায় বিশেষ ব্যবস্থা নেবে বলে কর্মকর্তারা আশা করছেন।

print
SOURCEকুয়েনসেল
শেয়ার করুন