আফগান বাহিনীকে অস্ত্রে সজ্জিত করতে ৭৬ বিলিয়ন ডলার খরচ মার্কিন সরকারের

আফগান বাহিনীকে অস্ত্রে সজ্জিত করতে ৭৬ বিলিয়ন ডলার খরচ মার্কিন সরকারের

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন

মার্কিন সরকারের একাউন্টেনিলিটি অফিস (জিওএ) থেকে বলা হয়েছে ২০০১ সাল থেকে আফগান সেনা ও পুলিশ বাহিনীর জন্য অস্ত্র ও সরঞ্জাম সরবরাহের জন্য পেন্টাগন ৭৬ বিলিয়ন ডলার অর্থ ব্যয় করেছে। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আফগানিস্তানে একটি নতুন কৌশল ঘোষণার আগমুহূর্তে এই প্রতিবেদন প্রকাশ হল। আফগানিস্তানের সেনাবাহিনী ও পুলিশের জন্য রাইফেলস ও পিস্তলসহ ৬ লাখ অস্ত্রের জন্য অর্থ দেওয়া হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার প্রকাশিত জিওএর প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে। এছাড়া ২৪ হাজার গ্রেনেড লঞ্চার এবং প্রায় ১০ হাজার রকেট চালিত অস্ত্র কিনতে আফগানদের অর্থ দেওয়া হয়েছিল। উপরন্তু, মার্কিন সরকার কাবুলকে ১ লাখ ৬২ হাজার ৬৪৩টি যোগাযোগ সরঞ্জাম এবং প্রায় ৭৬ হাজার যানবাহন দিয়েছে।

এর আগে বছরের শুরু দিকে,  আফগানিস্তান পুনর্গঠনের বিশেষ পরিদর্শক আফগান বাহিনীর দরকার ছিল না এমন ইউনিফর্ম এর পিছনে অর্থ খরচ করার জন্য পেন্টাগনকে নিন্দা করেছিলেন। আফগান সামরিক বাহিনীর সহায়তা ,অবকাঠামো  পুনর্গঠন এবং অর্থনৈতিক সহায়তার জন্য গত ১৭ বছরে যুক্তরাষ্ট্র প্রায় ৭০০ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ৯/১১ সন্ত্রাসী হামলার পর আফগানিস্তানের আল কায়েদার আশ্রয়ের প্রতিক্রিয়া হিসেবে ২০০১ সালে এই যুদ্ধ শুরু হয়েছিল। দেশটিতে আল কায়েদা পরাজিত হলে,  যুদ্ধে প্রধান প্রতিপক্ষ হয়ে উঠে স্থানীয় তালিবান বিদ্রোহীরা।

বৃহস্পতিবার, ট্রাম্প সাংবাদিকদের বলেন যে, তিনি আফগানিস্তানে তার প্রশাসনের নতুন কৌশল ঘোষণার “খুব কাছাকাছি পৌঁছে গেছেন”।

ট্রাম্প আরো বলেন,  এমন একটি সিদ্ধান্ত নেয়া আমার জন্য অনেক বড় ব্যাপার। আমি একটি বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির মধ্যে দায়িত্ব নিয়েছি। এটি কমিয়ে আনার চেষ্টা করছি। কিন্তু এটি এমন একটি জায়গা যেখানে ১৭ বছর ধরে আমাদের ইতিহাসের দীর্ঘতম যুদ্ধটি চলছে। শীগগিরই এ ব্যাপারে আমরা সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছি। তবে কবে নাগাদ যুক্তরাষ্ট্রের নতুন আফগান নীতি গৃহীত হবে সে ব্যাপারে কোনো সময় সীমা দেননি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, আফগান নীতির পর্যালোচনা এখনো চলছে। মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র হেথার নয়ের্ট বলেছেন, ‘প্রেসিডেন্টের জাতীয় নিরাপত্তা দলের কর্মকর্তাদের সাথে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনও ছিলেন তাদের মধ্যে’। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা যার দিকে অগ্রসর হচ্ছি তা শুধু আফগানিস্তান বিষয়ক সমস্যারই সমাধান নয়, এটি ভারত, পাকিস্তানসহ পুরো অঞ্চলের জন্য ফলপ্রসূ হবে’।

আফগানিস্তানে মার্কিন বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল জন নিকোলসন এবং ট্র্যাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা এইচআর ম্যাকমাস্টার আফগানিস্তানে প্রায় ৯ হাজার সৈন্যের সাথে আরও ৪ হাজার মার্কিন সৈন্য মোতায়েন করার পরামর্শ দিয়েছে।

কাবুলের মার্কিন সামরিক সদর দফতর তথ্য অনুযায়ী কাবুলে মার্কিন সমর্থিত সরকার দেশটির প্রায় ৬০ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করে যা গত বছরে ছিল ৬৫ শতাংশের বেশী।

print
শেয়ার করুন