ভারতের অন্তর্ভুক্তি চায়, পাকিস্তানের সাথে বাণিজ্য আলোচনা বাতিল করেছে আফগানিস্তান

ভারতের অন্তর্ভুক্তি চায়, পাকিস্তানের সাথে বাণিজ্য আলোচনা বাতিল করেছে আফগানিস্তান

এসএএম রিপোর্ট,
শেয়ার করুন

পাকিস্তানের সাথে বাণিজ্য আলোচনা বাতিল করেছে আফগানিস্তান। দু’দেশের মধ্যে একটি ট্রানজিট চুক্তি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এই আলোচনা হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ভারতকে অন্তর্ভুক্ত করার দাবি জানিয়ে কাবুল সরকার এই আলোচনা বাতিল করে দিয়েছে।

আফগানিস্তান-পাকিস্তান ট্রানজিট ট্রেড কোঅর্ডিনেশন অথোরিটি (এপিটিটিসিএ) একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য সংস্থা। দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য চুক্তির সাবলীল বাস্তবায়ন নিশ্চিত করার দায়িত্ব এই সংস্থার।

১৯৫০ সালে ওই চুক্তি সই হয়। আফগানিস্তান এই চুক্তির বলে করাচি বন্দরের মাধ্যমে শুল্কমুক্ত সুবিধায় আমদানি করতে পারে এবং লাহোর ও করাচি বন্দর ব্যবহার করতে পারে। আফগানিস্তান যাতে তার পণ্য রফতানির জন্য ভারতের স্থল বা সমুদ্র রুটের শরণাপন্ন না হয়, সেজন্যই চুক্তিটি করা হয়েছিল।

পাকিস্তানের ডন পত্রিকার এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘দ্বিপক্ষীয় ও ত্রিপক্ষীয় ট্রানজিট চুক্তিতে’ ভারতকে অন্তর্ভুক্ত করতে চায় আফগানিস্তান।

কাবুল সরকার ভারতের সাথে অসীম বাণিজ্য সম্ভাবনা কাজে লাগাতে চায়। তারা পাকিস্তানের সাথে ভবিষ্যতের চুক্তিতে নয়া দিল্লির জন্য সুযোগ রাখতে চাচ্ছে।

তবে ভারতকে চুক্তিতে সরাসরি অন্তর্ভুক্ত করতে রাজি নয় পাকিস্তান। গত দুই বছরে আফগানিস্তানের সাথে পাকিস্তানের বাণিজ্য ব্যাপক মাত্রায় কমে গেছে।

পাকিস্তানি কর্মকর্তারা বলছেন, আফগান-পাকিস্তান সীমান্ত বারবার বন্ধ করে দেওয়াতেই বাণিজ্য কমে গেছে।

তবে পাকিস্তানের এক সীমান্ত কমান্ডারের উদ্ধৃতি দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, সরকার আফগানিস্তান থেকে সন্ত্রাসীদের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে ‘বার্লিন প্রাচীর’ ধরনের কিছু সৃষ্টি করতে চাচ্ছে।

এদিকে, আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য দেশটিকে তার পাশে চাচ্ছে পাকিস্তান। মঙ্গলবার ভোয়া উর্দুকে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খাজা আসিফ বলেন, তিনি চার জাতি শান্তি-প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তালেবান ও আফগান সরকারকে আলোচনার টেবিলে আনতে চান।

ভারতকে নিঃসঙ্গ করার এটাও একটি পদক্ষেপ।

চার জাতি গ্রুপের মধ্যে রয়েছে আফগানিস্তান, যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও পাকিস্তান। আফগান যুদ্ধ অবসানের পদক্ষেপ হিসেবে আগামী সপ্তাহে ওমানের মাস্কটে দেশগুলো মিলিত হবে।

print
শেয়ার করুন