খালেদার মেডিকেল বোর্ড নিয়ে বিএনপির সংশয়

খালেদার মেডিকেল বোর্ড নিয়ে বিএনপির সংশয়

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন

রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির স্থায়ী কমিটি সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, এই মেডিকেল বোর্ড নিয়ে তারা ‘অসন্তুষ্ট’।

“আমরা মনে করি না যে সরকার দলীয় সমর্থিত চিকিৎসকদের দিয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার উপযুক্ত চিকিৎসা হবে। এটা আমরা বিশ্বাস করতে পারছি না।”

আগের যারা খালেদার চিকিৎসা করতেন, তাদের অন্তর্ভুক্ত করে নতুন করে মেডিকেল বোর্ড করে সেই বোর্ডের মাধ্যমে বিএনপি চেয়ারপাসনকে চিকিৎসা দেওয়ার দাবি জানান দলটির এই জ্যেষ্ঠ নেতা।

গত ৯ সেপ্টেম্বর বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতাদের সঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের বৈঠকের প্রসঙ্গ টেনে খন্দকার মোশাররফ বলেন, “আমাদেরকে কিন্তু ওইদিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী কথা দিয়েছিলেন, আমাদের নেত্রীর কিছু সংখ্যক চিকিৎসক, যারা তার চিকিৎসা করে থাকেন এবং সরকারের কিছু চিকিৎসক দিয়ে এক সাথে একটি মেডিকেল বোর্ড করবে।

“আমরা হতাশ হয়েছি। যখন মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে তখন দেখা গেল শুধু সরকারের দেওয়া ডাক্তারদের দিয়ে এই বোর্ড করা হয়েছে। আমরা মনে করি, সরকার সমর্থিত চিকিৎসকদের দিয়ে যে বোর্ড করা হয়েছে, সেই বোর্ডের পরামর্শে সঠিক চিকিৎসা হবে না। “

জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় পাঁচ বছরের সাজার রায়ে গত ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে আছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। অসুস্থতার কারণে অন্যান্য মামলায় তিনি আদালতে হাজির হতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

গত ৯ সেপ্টেম্বর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে দেখা করে ৭৩ বছর বয়সী খালেদার স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বেগ জানানোর পর গত বৃহস্পতিবার এই মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক আব্দুল জলিল চৌধুরীর নেতৃত্বে এই বোর্ডের সদস্যরা শনিবার কারাগারে গিয়ে খালেদা জিয়াকে দেখে আসেন।

বোর্ডের অন্য সদস্যরা হলেন কার্ডিওলজি বিভাগের অধ্যাপক হারিসুল হক, অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক আবু জাফর চৌধুরী, চক্ষু বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তারেক রেজা আলী ও ফিজিকেল মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক বদরুন্নেসা আহমেদ।

বিএনপি ইতোমধ্যে অভিযোগ করেছে, সরকারের ‘পছন্দ অনুযায়ী প্রতিবেদন’ তৈরির পরিকল্পনা থেকে ‘অনুগত ও পছন্দের লোকদের’ দিয়ে এই মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে।

বিএনপি তাদের নেত্রীকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তির দাবি জানিয়ে আসছে। তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের পক্ষ থেকে বিএসএমএমইউ কিংবা সিএমএইচে ভর্তির প্রস্তাব দেওয়া হলেও তা গ্রহণ করেননি খালেদা।

খালেদাকে মুক্তি দেওয়া না হলে আগামী নির্বাচন বর্জানের ইংগিত দিয়ে রেখেছেন বিএনপির নেতারা। অন্যদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতারা দাবি করেছেন, খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে বিএনপি ‘রাজনীতি’ করছে।

নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী উপস্থিত ছিলেন।

print
SOURCEবিডিনিউজ২৪
শেয়ার করুন