কিছু লোক মালদ্বীপের সাথে চীনের বন্ধুত্ব সহ্য করতে পারছে না, বলেছে বেইজিং

কিছু লোক মালদ্বীপের সাথে চীনের বন্ধুত্ব সহ্য করতে পারছে না, বলেছে বেইজিং

এসএএম স্টাফ,
শেয়ার করুন

চীন বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, নব-নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম সলিহ বেইজিং ও মালের মধ্যকার সব প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রতিশ্রুতি দেয়া সত্ত্বেও কিছু লোক মালদ্বীপের সাথে চীনের বন্ধুত্বকে সহ্য করতে পারছে না।

চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, মালদ্বীপে নিযুক্ত তাদের রাষ্ট্রদূত ঝাঙ লিঝঙ সম্প্রতি সলিহর সাথে সাক্ষাত করে তাকে বলেছেন যে বেইজিং তার সাথে কাজ করতে আগ্রহী এবং নতুন সরকারের সাথে সহযোগিতা গভীর করতে চায়। উল্লেখ্য, ক্ষমতাসীন বেইজিংপন্থী আবদুল্লাহ ইয়ামিনকে গত মাসে পরাজিত করে নির্বাচিত হয়েছেন সলিহ।

ইয়ামিন এর আগে চীনকে অনেক সুবিধা দিয়ে বেশ কিছু চুক্তিতেই সই করেছিলেন।

নির্বাচনী প্রচারণার সময় সলিহর মালদিভিয়ান ডেমোক্র্যাটিক পার্টি ক্রমবর্ধমান চীনা বিনিয়োগের সমালোচনা করেছিল। বিশেষ করে পার্লামেন্টে কোনো বিতর্ক ছাড়াই অবাধ বাণিজ্য চুক্তি করার জন্য আবদুল্লাহ ইয়ামিনের নিন্দা করেছিল।

সলিহ ও চীনা দূতের মধ্যকার সভার কথা জানিয়ে চীনা পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র লু ক্যাঙ বলেন, সলিহ বলেছেন যে তার সরকার চীনের সাথে সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ করবে। দুই দেশের মধ্যকার চুক্তিগুলো অনুসরণ করবে, বিদ্যামান প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করবে।

সলিহ যদি চীনা প্রকল্পগুলো পুনর্বিবেচনা করে তবে বেইজিং উদ্বিগ্ন হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে লু বলেন, চীন ও মালদ্বীপ সাম্যের ভিত্তিতে একে অপরের সাথে সহযোগিতা করছে। মালদ্বীপের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে অবদান রাখতে চায় চীন।

তিনি বলেন, আমরা বিভিন্ন পর্যায়ে উল্লেখ করেছি যে কিছু লোক আমাদের সহযোগিতার সাবলীল অগ্রগতি দেখতে চায় না।

ভারত মহাসাগরের অত্যন্ত ব্যস্ত সামুদ্রিক রুটে মালদ্বীপ অবস্থিত। চীন ও ভারত উভয়েই সেখানে প্রভাব বাড়ানোর চেষ্টা করছে।

মালদ্বীপ ঐতিহ্যগতভাবে ভারতের মিত্র। তবে ইয়ামিনের আমলে দেশটি চীনের সাথে অনেক বেশি ঘনিষ্ঠ হতে থাকলে নয়া দিল্লি উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে।

print
SOURCEআইএএনএস
শেয়ার করুন